আমাদের চোখে আমাদের সব থেকে বড় শত্রু যদি আমাদের চোখ খারাপ কিছু দেখে তখন মনে খারাপ কিছু আসে আর যখন মনে খারাপ কিছু আসে তখন আমাদের ব্রেইনে খারাপ চিন্তা আসে আর যখন আমাদের খারাপ চিন্তা হয় তখন আমাদের কথা খারাপ হয়ে যায় আর আমাদের কথা খারাপ হলে আমাদের ব্যবহার খারাপ হয়ে যায় আর আমাদের ব্যবহার খারাপ হলে আমাদের সারাটি জীবনে খারাপ হয়ে যায়।











x

 












যেমন সীতাকে দেখে রাবণ এর দৃষ্টি খারাপ হয়ে যায় এরপর রাবণের মন খারাপ হয়ে যায় এরপর রাবনের মাথায় খারাপ চিন্তা আসে এরপর রাবণের কথার পরিবর্তন হয় এরপর তার ব্যবহার খারাপ হয়ে যায় আর সবশেষে রাবণের জীবনটাই খারাপ হয়ে যায়। 


মনের শান্তির জন্য আকাশে ওড়া ঘুড়ির থেকে শিক্ষা নেই, যখন হাওয়া ভালো থাকে তখন ঘড়ি কে ছেড়ে দেওয়া হয় যে যেতে দাও যত দূর যাবে। কিন্তু যখন হাওয়া কম হয়ে যায় তখন ঘুড়ি নিচে আসা শুরু করে তখন শুতো কে টেনে নিতে হয়।


একইভাবে যখন আপনার মন ভালো কাজে যাবে তখন তাকে যেতে দিন। কিন্তু যখন মন খারাপ কিছু দিকে যেতে চাইবে তখন তাকে সেখান থেকে টেনে নিন। 


একটি ব্যক্তি একটি নৌকাতে ওঠে তাকে নদী পার করার ছিল। নৌকা চালাতে থাকেন সকালে সে দেখে নদীর পাড়ে বসে আছে। কিন্তু সেখানে নেই যেখানে তার যাওয়ার কথা ছিল বরং সেখানে ছিল যেখান থেকে সে চলা শুরু করেছিলো…  কারণ সে নৌকা বেঁধে রাখার দৌরি খুলতে ভুলে গিয়েছিল। আর সারা সে পরিশ্রম করেছে কিন্তু ব্যর্থ হয়েছে।


 একইভাবে যতদিন না আমরা আমাদের মনের গিট খুলতে পারবো না। ততদিন আমরা যত চেষ্টা করি না কেন আমরা কখনই ভাল হতে পারব না।


 একটি ট্রেনে করে এক ব্যাক্তি  কোথাও যাচ্ছিল। যখন তার কাছে টিটি টিকিট চায় তখন তিনি তার পকেটে চেক করেছেন কিন্তু টিকিট ছিল না।  এরপর সে তাঁর ব্যাগ খুলে সেখানেও ছিল না। এরপর টিটি তাকে বলে ছাড়ুন আপনাকে দেখে মনে হচ্ছে আপনি সৎ মানুষ। আপনি টিকিট ছাড়া সফর করতেই পারেন না।


 এরপর ওই ব্যক্তি বলে আমি টিকিটটি সে কারণে খুঁজে নি। আমি টিটিকটি খুজছি যাতে আমি এটা জানতে পারি যে আমি কোথায় যাব। আর আজ বেশিরভাগ লোকের ঠিক এমনই অবস্থা। আমরা চলছি সবাই কিন্তু কোথায় যাব কেউ জানেনা।


 খাবারে সবকিছু আছে কেবল লবণ না থাকলে খাবারটি বেকার। একইভাবে হাসপাতালে সবকিছু আছে কিন্তু ডাক্তার না থাকলে, হসপিটাল বেকার। গাড়িতে সবকিছু আছে, কিন্তু শুধুমাত্র ব্রেক না থাকলে গাড়িটি বেকার।


 একইভাবে জীবনের সবকিছু আছে জীবনের সবকিছু আছে। কিন্তু জীবনের শান্তি না থাকলে জীবনটাই বেকার। কোনরকম স্বার্থ ছাড়া কারো উপকার করে দেখুন আপনার সমস্ত সমস্যা খোদায় ঠিক করে দেবে। আমাদের কখনোই ব্যক্তির উপর ভরসা করা উচিত নয়। যে সময়ের সাথে সাথে নিজের স্বভাব পরিবর্তন করে।


লোক চাইবে যে আপনিও ভালো কিছু করুন। কিন্তু এটাও সত্য লোক কখনও চাইবেনা আপনি তার থেকে ভালো কিছু করুন। কেবলমাত্র চিন্তারই পার্থক্য তা না হলে সমস্যা আপনাকে দুর্বল করার জন্য নয় বরং আপনাকে মজবুত করার জন্য আসে।



যদি লোক কেবল আপনাকে শুধু আপনাকে প্রয়োজনের সময় মনে করে তাহলে খারাপ মনে করবেন না বরং গর্ব করুন। কারণ মোমবাতির কথা তখনই মনে পড়ে যখন অন্ধকার হয়। পৃথিবীর ভিড়ে মানুষ সব কিছু ভুলে গেলেও যখন একা থাকবে, তখন সে তার কথায় মনে করবে যাকে সে মন থেকে ভালোবাসে।

 যে প্রথমে ক্ষমা চায় সে সব থেকে বেশি সাহসী। আর যে সবার আগে ক্ষমা করে সে সবথেকে শক্তিশালী। আর যে খুব সহজে ভুলে যায় সে সবার থেকে বেশি সুখী হয়।



 একটি উপহার তখনই ভালো, যখন সেটা মন থেকে সঠিক মানুষকে সঠিক সময়ে সঠিক জায়গায় দেওয়া হয়। আর যখন উপহার দেওয়া ব্যক্তি পরিবর্তে কোন কিছু পাওয়ার আশা করে না। বিশ্বাস তো আমাদের নিশ্বাসের উপরে নেই, আর আমরা অন্য মানুষের উপর বিশ্বাস করি।



 আমাদের জন্ম আমাদের হাতে থাকে না, কিন্তু যে চরিত্রের সাথে আমরা মারা যায় তার জন্য দায়ী কেবল মাত্র আমরা। আর এটা আমাদের কথা চিন্তা ও কাজের উপর নির্ভর করে। পৃথিবীতে সব থেকে সহজ কাজ হল বিশ্বাস হারানো। সবথেকে কঠিন কাজ বিশ্বস্ত মানুষ পাওয়া আর এর থেকেও কঠিন কাজ হল বিশ্বাস কে ধরে রাখা।



 সবশেষে আমার পক্ষ থেকে উপরওয়ালা কে ভয় পান বা না পান নিজের কাজকে ভয় পান। কারণ তিনি ক্ষমা করে দেবেন কিন্তু আপনার কর্ম আপনাকে ক্ষমা করবে না।